• <div id="fb-root"></div>
    <script async defer crossorigin="anonymous" src="https://connect.facebook.net/en_GB/sdk.js#xfbml=1&version=v4.0&appId=540142279515364&autoLogAppEvents=1"></script>
  • শিরোনাম

    স্বপ্ন জয়ের আকাঙ্ক্ষাই এনে দেবে সফলতা: জয়

    ডেস্ক | ২৮ জুলাই ২০১৬ | ১২:৫৫ অপরাহ্ণ

    সামনে এগিয়ে যাওয়ার জন্য মানুষকে স্বপ্ন দেখতে হয়। যদি স্বপ্ন থাকে আর স্বপ্ন জয়ের আকাঙ্ক্ষা থাকে, তবে সব স্বপ্নই বাস্তবায়ন সম্ভব।আমার সবচেয়ে বড় স্টার্ট আপ হলো ডিজিটাল বাংলাদেশ। ডিজিটাল বাংলাদেশ একসময় স্বপ্ন ছিল। সেই স্বপ্ন এখন বাস্তবে রূপ নিয়েছে।

    আজ দুপুরে রাজধানীর প্যান প্যাসেফিক সোনারগাঁও হোটেলে কারওয়ান বাজারস্থ জনতা টাওয়ারে দেশের ইতিহাসে প্রথম ‘আইটি ইনকিউবেটর’-এর উদ্বোধনকালে এসব কথা বলেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়।

    তিনি আরো বলেন, ‘আজ ডিজিটাল বাংলাদেশের একটা ঐতিহাসিক দিন। কেননা দেশের ইতিহাসে এই প্রথম কোন সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কে ডিজিটাল ইনকিউবেটরে সাপোর্ট সেন্টারের উদ্বোধন করা হয়েছে। এটি ডিজিটাল বাংলাদেশের অগ্রগতির পথে আরেকটি মাইলফলক। এভাবেই ধীরে ধীরে ডিজিটাল বাংলাদেশ সবার কাছে সুপরিচিত হচ্ছে।’

    অনুষ্ঠানে কানেক্টিং স্টার্ট আপ বিজয়ী ১০টি সেরা উদ্যোগ ঘোষণা করা হয়। এসব উদ্যোক্তার হাতে কারওয়ান বাজারের জনতা টাওয়ারে অবস্থিত আইটি ইনকিউবেটরের চাবি তুলে দেয়া হয়। বিজয়ীদের উদ্ভাবনী কাজে সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে। তাদের জন্য জনতা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কে বাংলালিংকের সহযোগিতায় ডিজিটাল ইনকিউবেটরের সাপোর্ট সেন্টারে এক বছরের জন্য বিনামূল্যে জায়গা বরাদ্দ পাওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে। তাদের আর্থিক বিনিয়োগের মাধ্যমে উদ্যোগটি যাতে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ভূমিকা রাখতে পারে তার ব্যবস্থা করা হবে।

    এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা বলেন, ‘আমি ২০ বছর আগে যুক্তরাষ্ট্রের সিলিকন ভ্যালিতে স্টার্ট আপ শুরু করেছিলাম। আমি সফল হয়েছিলাম। আমার বিশ্বাস, আজ যে ১০টি স্টার্ট আপ আইটি ইনকিউবেটরে জায়গা বরাদ্দ পেল তারাও সফল হবে।’

    জয় বলেন, বাংলাদেশে স্টার্টআপের অনেক সম্ভাবনা রয়েছে। আজকের সেরা দশ স্টার্টআপ বিজয়ীই তার প্রমাণ। এই বিজয়ীরা তাদের নতুন নতুন উদ্ভাবন দিয়ে দেশের আইসিটি শিল্পকে এগিয়ে নিয়ে যাবে। তারা বিশ্বের আইসিটি শিল্পের সাথে বাংলাদেশের আইসিটি শিল্পকে পরিচয় করিয়ে দেবে।

    উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে গেস্ট অব অনার হিসেবে ছিলেন আন্তর্জাতিক টেলিকমিউনিকেশন সংস্থার মহাপরিচালক হাউলিন ঝাও। বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, সচিব শ্যাম সুন্দর শিকদার, বিটিআরসির  চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ, ঢাকা দক্ষিণের মেয়র আনিসুল হক, ভিম্পলকমের চেয়ারম্যান এমিরেটাস ও কো-ফাউন্ডার অগি কে. ফাবেলা, বাংলালিংক-এর সিইও এরিক ওস, আইসিটি ডিভিশন, বেসিস, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল, বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক অথরিটি, বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি এবং বিএসিসিও এর প্রতিনিধিরা।

    সকালে কারওয়ান বাজারস্থ জনতা টাওয়ারে দেশের ইতিহাসে প্রথম ‘আইটি ইনকিউবেটর’-এর লোগোর মোড়ক উন্মোচন করা হয়।

    আইসিটি ডিভিশন, বেসিস, বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষ ও বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি) যৌথভাবে কানেক্টিং স্টার্টআপস বাংলাদেশ প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছে। এই আয়োজনে ইনকিউবেশন ও টেলিকম পার্টনার হিসেবে বাংলালিংক এবং অন্যান্য সহযোগী হিসেবে রয়েছে ফেনক্স ভেঞ্চার ক্যাপিটাল, গ্যাপ এবং কিজকি।

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
     
    ১০১১১২
    ১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
    ২০২১২২২৩২৪২৫২৬
    ২৭২৮২৯৩০